মৌসুনী আনন্দ মহল CALL NOW : 77680 7951 / 80017 77919 / 70768 07951
মৌসুনী আনন্দ মহল আইল্যান্ড / Mousuni Ananda Mahal Island
সীমাহীন জলরাশি,ধুধু বালুচর আর ঝাঊএর একাকৃত্য
মৌসুনী আনন্দ মহল আইল্যান্ড / Mousuni Ananda Mahal Island
সীমাহীন জলরাশি,ধুধু বালুচর আর ঝাঊএর একাকৃত্য
মৌসুনী আনন্দ মহল আইল্যান্ড / Mousuni Ananda Mahal Island
সীমাহীন জলরাশি,ধুধু বালুচর আর ঝাঊএর একাকৃত্য
previous arrow
next arrow
Slider

মৌসুনী আনন্দ মহল আইল্যান্ডের ইতি কথা

পর্যটনকেন্দ্রের বাইরে এখনহোমস্টে পর্যটকদের কাছে আকর্ষণের। পশ্চিমবঙ্গের একবারেই দক্ষিণে বঙ্গবসাগরের কূলে গ্রামীন, নির্জনরোমাঞ্চকর পরিবেশে তৈরি হয়েছে এই “ মৌসুনি আনন্দ মহল আইল্যান্ড ” পর্যটনকেন্দ্রটি। সমুদ্রসৈকতের কোলে ম্যানগ্রোভের ঘণ জঙ্গল।তার মধ্যে দিয়ে প্রবাহিত ছোট ছোট জলধারা।মুড়িগঙ্গার শাখা চেনাই নদীর মোহনায় সমুদ্রের ভাঙা ঢেউ আর রঙিন গুল্মের ঘেরাটোপে উঠেছে ওই পর্যটনকেন্দ্রটি।গ্রামের একটি বড় অংশে আদিবাসীদের সাদামাটা জীবনযাত্রা।ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষামূলক ভ্রমণের জন্য আদর্শ।পরিবেশ বান্ধব সামগ্রী দিয়ে ৩০ জন থাকার মতো শিবিরে রয়েছে বিদ্যুতের ব্যবস্থা।তার বাইরেও রয়েছে ১০ টি টেন্ট।তাতে ৩০ জনের মতো থাকার জায়গা।কেউ চাইলে পাশে থাকা সংযুক্ত বাথরুম সমেত বাঁশের চাঁচড়া দিয়ে বানানো ঘরেও থাকতে পারেন। নামমাত্র খরচে থাকা খাওয়ার ব্যবস্থার বাইরে রয়েছে এলাকা ঘুরে দেখার জন্য দাঁড় টানা নৌকো। পায়ে টানা ভ্যান।

কলকাতা থেকে এই পর্যটন ভূমিতে আসার মাধ্যম

শিয়ালদহ রেল স্টেশান থেকে নামখানা, তারপর নামখানা স্টেশন থেকে হাতানিয়া দোয়ানিয়া নদী পেরিয়ে বাস বা ছোট গাড়িতে করেনামখানা – বকখালি রোডের উপরেই দশ মাইল স্টপেজ। সেখান থেকে পিচ রাস্তায় অল্পসময়ে পাতি বুনিয়া খেয়াঘাটে পৌঁছে নৌকায় ম্যানগ্রোভ, পাখির  কিচমিচ কলরব উপভোগ করতে করতে মৌসুনী দ্বীপে পৌছে ।

হাতানিয়া দোয়ানিয়া নদীর উপর নবনির্মিত সেতু,যার উপর দিয়ে পারাপারের সময় দেখতে পাবেন পূর্বে লুথিয়ান দ্বীপ,পশ্চিমে কাঁকড়া মাড়ির চড়া। নদীর উপরে দাঁড়িয়ে থাকা বাংলাদেশী স্টিমার ,ফিশিং ট্রলার,দাঁড় টানা নৌকা

এছাড়া ও ধর্মতলা থেকা টানা বাস সংযোগ এই দ্বীপের পার্শবর্তী ১০ মেইল বাস স্টপে

আনন্দ মহলে যাওয়ার পথে এগুলো দেখতে পাবেন

এই পর্যটন কেন্দ্রে থাকার জন্য প্রকৃতির কোল থেকে নেওয়া হোটেলের মত বিলাসবহুল না হলে ও দূষনমুক্ত নির্মল বাতাস,জনবহুলের শ্রুতিকটু শব্দের পরিবর্তে বেলা ভূমির কোলে আছড়ে পড়া সাগরের ঢেউয়ের গর্জন,পাখির কুঞ্জন শুনতে পাবেন একাকি গাছে বাঁধা দোলনায় বসে নির্জনে নিভৃতে।

সাহিত্যপ্রেমিক,রোমান্টিক জুটির জন্য স্বর্গসম এই জায়গা

বিয়ার কে সঙ্গী করে জমজমাট কুঠি

তালগাছ একপায়ে দাঁড়িয়ে, সব গাছ ছাড়িয়ে উঁকি মারে আকাশেতে

সীমাহীন জলরাশি,ধুধু বালুচর আর ঝাঊএর একাকৃত্য

লাল কাঁকড়ায় সমারোহ

গোধূলির লালাকাশ

Close Menu